ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
ই-পেপার |  সদস্য হোন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
লামায় ভূমিদস্যুর বিরুদ্ধে যৌথ সংবাদ সম্মেলন
মোঃজুবাইরুল ইসলাম, লামা
প্রকাশ: Monday, 3 June, 2024, 9:57 PM

লামায় ভূমিদস্যুর বিরুদ্ধে যৌথ সংবাদ সম্মেলন

লামায় ভূমিদস্যুর বিরুদ্ধে যৌথ সংবাদ সম্মেলন

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নে মাহাবুব রহমান নামের এক প্রতারক ভ‚মি মালিকের বিরুদ্ধে যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী দুই পরিবারের লোকজন। সোমবার (০৩ জুন) বিকেল ৫টায় ফাইতং ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকায় বিরোধীয় ভ‚মিতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলন প্রতারক ভ‚মি মালিক মাহাবুব রহমান এর বিরুদ্ধে জমি ক্রেতা শামশুল আলমের ছেলে মোঃ আকতার হোসেন লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এবং অপর ক্রেতা মাশুক আহামদ এর ছেলে মোঃ ফোরকান উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।  

লিখিত বক্তব্যে মোঃ আকতার হোসেন বলেন, লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের মৃত হাজী আবদু জলিলের পুত্র মাহাবুব রহমান লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের ৩০৬ নং ফাইতং মৌজার ২৮ নং খতিয়ানের ২ একর ৮০ শতক জমির মালিক। উক্ত খতিয়ানের সম্পূর্ণ জমি একই এলাকার আহমদ হোছনের ছেলে মাশুক আহমদ ও ছালামত আলীর পুত্র সামশুল আলমের নিকট ৩ লাখ ১৫ হাজার টাকা মূল্য নির্ধারণ করে গত ৫ অক্টোবর ১৯৯৪ সালে বায়নানামা দলীল মূলে বিক্রি করেন। যার দলিল নং- ৬১৫/১৯৯৪। বিক্রির পর থেকে বিভিন্ন অজুহাতে বিক্রেতা নামজারি করে দিতে তালবাহানা করে। এই নিয়ে উভয়পক্ষ আদালতে মামলা করে যা এখনো চলমান রয়েছে। কিন্তু মাহাবুব রহমান এই ফাঁকে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে উক্ত রেজিষ্ট্রেশন আজ দেবে কাল দেবে বলে বছরের পর বছর কালক্ষেপণ করে আসছে। এই অবস্থায় গোপনে মাহাবুব রহমান তার স্ত্রী শাহানারা বেগম, পুত্র মোঃ রিয়াজ উদ্দীন ও মোহাং হোচন এর পুত্র আহামদ উল্লাহর নিকট একই খতিয়ান থেকে ২ একর ৩০ শতক জমি বায়নানামা মূলে বিক্রি করেন। যার দলিল নং- ১৩৪৬/২০০৯। অপর দিকে এই মালিক এলাকার মৃত হাজী ইসলামের পুত্র হাফেজ মোঃ জাহিদুলের কাছে উক্ত খতিয়ান থেকে গত ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই ২০ শতক (যার দলিল নং ৪৩১/২০১৮), ২০২২ সালে শহিদুল্লাহ মিন্টুর নামে ৩৯ শতক (যাহার দলিল নং- ৩১৪/২২), জাহেদুল ইসলামের কাছে ২০২২ সালে ৫৪ শতক (যা বায়নানামা দলিল নং ৮৬/২২), আবুল কাশেম ৬ শতক (যা বায়নানামা দলিল নং- ৩১৩/২২) এবং জাফর আলম নামে ২ দুই একর ১০ শতক (যাহার বায়নানামা দলীল নং- ৬২৭/২২) প্রদান করেন।

মাহাবুব রহমানের প্রতারণা ও সটামির সংবাদ পেয়ে ক্রেতা মাশুক আহমদ ও সামশুল আলম গং লামা উপজেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- সিআর ২২৪/২২ইং। এদিকে বছরের পর বছর রেজিষ্ট্রেশন না পেয়ে আদালতে ঘুরতে ঘুরতে জমি গ্রহীতা মাশুক আহমদ ও সামশুল আলম অবশেষে মারা যান। গত ৩০ বছর থেকে এই বিরোধ চলে আসছে এবং দুইটি পরিবারের মানুষ আইনী বেড়াজালে পিষ্ঠ হয়ে পথের ভিখারী হচ্ছে। ভুক্তভোগী পরিবারের ছেলে/মেয়েরা গণমাধ্যমের মাধ্যমে প্রতারক মাহাবুব রহমানের বিরুদ্ধে আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের সহায়তা কামনা করেন।

� পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ �







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, গ্রীন ট্রেড পয়েন্ট, ৭ বীর উত্তম এ কে খন্দকার রোড, মহাখালী বা/এ, ঢাকা ১২১২।
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: [email protected]
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status