ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
ই-পেপার |  সদস্য হোন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
কুড়িগ্রাম ফাহাদ আল ফারাবী টেলিস্কোপ তৈরি করে সাড়া ফেলে দিয়েছে
আহম্মেদুল কবির, কুড়িগ্রাম
প্রকাশ: Monday, 22 April, 2024, 11:47 AM

কুড়িগ্রাম ফাহাদ আল ফারাবী টেলিস্কোপ তৈরি করে সাড়া ফেলে দিয়েছে

কুড়িগ্রাম ফাহাদ আল ফারাবী টেলিস্কোপ তৈরি করে সাড়া ফেলে দিয়েছে

নিজের পোষা বিড়াল NEKO- K -1- এরনামে- নাম দিয়ে টেলিস্কোপ তৈরি করে কুড়িগ্রাম রাজারহাট উপজেলার প্রত্যান্ত গ্রমাঞ্চলের ফাহাদ আল ফারাবী (১৬) নামের এক কিশোর এলাকায় বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছে।ফাহাদ আল ফারাবী রাজার হাট পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। সে উপজেলার মেকুটারী গ্রামের জয়নুল আবেদীন ও পারভীন খন্দকারের ছোট ছেলে।

জানা যায়, ফাহাদ আল ফারাবী ছোট বেলা থেকে মহাকাশ সম্পর্কে জানতে খুবই আগ্রহী ছিল। বইয়ের পাতায় গ্রহ, নক্ষত্র, উপগ্রহের অবস্থান পড়ে দেখার খুব ইচ্ছে ছিলো তার। ২০২৩ সালে পিতা জয়নুল আবেদীন ও বড়ভাই  ফাহাদ  ফাহমিদ আল জাবের সহযোগিতায় তিন মাসের মধ্যে টেলিস্কোপ বানিয়ে ফেলে ফাহাদ আল ফারাবী।
ফাহাদ আল ফারাবী জানায়, ছোটবেলা থেকে তার ইচ্ছে ছিলো মহাকাশ নিয়ে কাজ করার। এস্টোনমি ইন্সট্রমেন্ট না থাকায় কাজ করতে পারিনি। ২০২৩ সালে ঢাকার এক এস্ট্রনোমি হাউজ থেকে যন্ত্রপাতিগুলো সংগ্রহ করে টেলিস্কোপটি বানাতে সক্ষম হয় সে।

ফারাবীর তথ্যমতে, টেলিস্কোপটি তৈরি করতে মুলতঃ পিভিসিপাইপ,লেন্স

মাউন্ট,ফোকাল,এ্যাপারচার,মিরর,ফোকাসার,মেটাল থ্রি ডি স্পাইডার ও কাঠের প্রয়োজন হয়। সে ওই সমস্ত জিনিস ব্যবহার করে মাত্র ১৭ হাজার টাকায় টেলিস্কোপ বানাতে সক্ষম হয়েছে। তার টেলিস্কোপটির ওজন ১২ কেজি। এটির মাধ্যমে ৩ লাখ কিঃমি দূর থেকে দৃশ্য ধারণ করা যায় বলে সে জানায়। ভবিষ্যৎ আরো উন্নত টেলিস্কোপ ও মাইক্রো টেলিস্কোপ বানানোর ইচ্ছে প্রকাশ করে সে। সে এও জানায়, সে যে মানের টেলিস্কোপ তৈরি করেছে  বাজারে  তার মূল্য ৪০-৫০ হাজার টাকা। সরকারি সহযোগিতা পেলে সপ মানুষের কাছে স্বল্পদামে টেলিস্কোপ পৌছে দেয়ার জন্য কাজ করে যাবারও ইচ্ছে প্রকাশ করে।

ফারাবীর বন্ধু- বান্ধব আত্নীয়- স্বজন,স্কুল সহপাঠী স্কুল শিক্ষক এবং এলাকাবাসী ফারাবীর তৈরি টেলিস্কোপ দিয়ে দূরের  চন্দ্র- সূর্য খালি চোখে স্পষ্ট দেখে খুবই ভালো লাগার কথা ব্যক্ত করেছেন।

ফারাবীর এই সাফল্যের কথা নিজ গ্রাম থেকে উপজেলা ও জেলা এবং বিভিন্ন মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি প্রশাসনিক কর্মকর্তাদেরও নজরে এসেছে। তার এই সাফল্যের বিষয়ে
রাজারহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোছাঃ আয়শা সিদ্দিকা বলেন, এ বয়সে বাইরে আড্ডা না দিয়ে ঘরে বসে মেধার বিকাশ করতে টেলিস্কোপ বানানোর কাজটি খুবই প্রশসংসার দাবীদার। সরকারি কোন সহযোগিতার প্রয়োজন হলে উর্ধতন কর্মকর্তার সাথে কথা বলে ফারাবীর পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন।

� পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ �







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, গ্রীন ট্রেড পয়েন্ট, ৭ বীর উত্তম এ কে খন্দকার রোড, মহাখালী বা/এ, ঢাকা ১২১২।
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: [email protected]
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status