ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
ই-পেপার |  সদস্য হোন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
সোমবার ২৪ জুন ২০২৪ ১০ আষাঢ় ১৪৩১
’মহল্লার কূটনা বুড়ি’ এবং একজন নাঈমুল ইসলাম খান
সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী
প্রকাশ: Wednesday, 5 June, 2024, 9:26 PM
সর্বশেষ আপডেট: Wednesday, 5 June, 2024, 9:35 PM

’মহল্লার কূটনা বুড়ি’ এবং একজন নাঈমুল ইসলাম খান

’মহল্লার কূটনা বুড়ি’ এবং একজন নাঈমুল ইসলাম খান

ক'দিন আগে সহকর্মী তাজুল বললো, নাঈম স্যার প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব হচ্ছেন। আমি ওকে হাল্কা ধমক দিয়ে বললাম, কোত্থেকে এসব গুজব শুনিস! নাঈম ভাইর মতো মানুষ প্রেস সচিব হবেন? তুই ভুল শুনেছিস। ও বললো, না স্যার, তথ্য সঠিক। অনেকের কাছেই শুনছি। আমি বললাম, তোর কথা যদি সত্যিও হয় তাহলে পদটা প্রেস সেক্রেটারি না। ওটা তাহলে মিডিয়া কিংবা প্রেস উপদেষ্টা। পরবর্তীতে খানিকটা অবাক হলাম, যখন দেখলাম প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে ইস্যু হওয়া একটা চিঠি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাঁতার কাটছে। নাঈম ভাইকে সত্যিই প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। 

যাইহোক। অপেক্ষায় ছিলাম কখন এবিষয়ে সরকারি প্রজ্ঞাপনটা জারি হয়। এরইমাঝে এক সপ্তাহ পেরিয়ে হয়ে গেলো। প্রজ্ঞাপনের ঘুম ভাঙছেনা। আমিও একটু বিস্মিত। কারণ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমি যদ্দুর জানি-চিনি, তিনি কোনো বিষয়ে একবার সিদ্ধান্ত নিলে এটা আর পাল্টানোর ক্ষমতা কারো নেই। নাঈমুল ইসলাম খান ভাইর মতো একজন প্রাজ্ঞ সাংবাদিক, সম্পাদক এবং একটা জলজ্যান্ত ইনস্টিটিউশন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিবের দায়িত্বে গেলে সরকারের নানাদিক দিয়েই লাভ। নাঈম ভাইর যোগ্যতা আছে দেশে এবং বিদেশে আওয়ামীলীগ সরকারের বিরুদ্ধে চলমান অপপ্রচারের বিপরীতে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার। বিদেশের গণমাধ্যমে সরকারের ইতিবাচক দিকগুলোর পাশাপশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অগ্রসারায়মান বাংলাদেশের চিত্র দেশবিদেশে তুলে ধরার মাধ্যমে বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণের পাশাপাশি বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উন্নয়নে কার্যকর কিছু নাঈম ভাই নিশ্চয়ই করবেন।  

একজন সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খানকে আমি খুব বেশি আগে থেকে চিনিনা। ওনাকে চিনি ২০০১ সাল থেকে। এরপর ওনার সম্পাদনায় নতুন ধারার দৈনিক আমাদের সময় প্রকাশিত হলে বেশ ক'মাস ওখানে লেখালেখির সুযোগ পেয়েছি। আর তখনই জেনেছি, সম্পাদক হিসেবে তিনি কতোটা নির্মম। সূত্রবিহীন গুজব কিংবা রিপোর্টের নামে অলীক গল্প তিনি সরাসরি ছুঁড়ে ফেলেন ময়লার বাস্কেটে। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় নেই। একারণেই আমি জানি, নাঈম ভাইর পক্ষে কারো সম্পর্কেই মিথ্যে কল্পকাহিনী ছাপা অসম্ভব। তিনি এটা একদম বরদাস্ত করেননা।  

লক্ষ্য করলাম, নাঈম ভাইর নিয়োগকে ঘিরে কিছু অনলাইন পোর্টালে অনেক কথাই বলা হচ্ছে। এমন কথাও বলা হচ্ছে, এক-এগারোর সময়টাতে ওনার সম্পাদনায় প্রকাশিত আমাদের সময় পত্রিকায় বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক কিংবা মিথ্যে গুজব ছাপা হয়েছে। যাদের পোর্টালে এসব প্রকাশিত হলো, এদের সাংবাদিকতা জীবনের গুরু নাঈম ভাই। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে। গুরু মারা শিষ্য। ওসব পোর্টালের পেছনের লোকেরা ওই গোত্রের। 

এক-এগারোর অশান্ত সময়ে বহু পত্রিকার সম্পাদককে অনেক কিছুই ছাপতে বাধ্য করা হয়েছে। বাংলাদেশের এমন একটা পত্রিকাও ছিলোনা যেগুলোয় চাপ দিয়ে রাজনীতিবিদ কিংবা ওনাদের পরিবারের বিরুদ্ধে নানা কুকথা ছাপানো হয়নি। এক্ষেত্রে নাঈম ভাই একাই এখন দোষী হয়ে গেলেন। আর বাকিরা সবাই সাধু?

যারা নাঈমুল ইসলাম খান সম্পর্কে কুকথা ছড়াচ্ছে, ওদের একজনেরও কি ওনার পায়ের নখের সমান যোগ্যতা আছে? নাঈম ভাইর হাতে গড়া ওসব সাংবাদিক এখন নিজেদেরকে গুরুর চাইতেও বড় ভাবছেন? বাহ্, অকৃতজ্ঞ লোকজন।

ইংরেজী একটা প্রবাদের বাংলা অনুবাদ অনেকটা এমন - আনুগত্য প্রত্যাশিত, কার্যকারিতা প্রয়োজন। নাঈমুল ইসলাম খান হয়তো অনেকের মতো ওতোটা অনুগত নন, কিংবা মোসাহেবী করার যোগ্যতা ওনার নেই। কিন্তু তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব হলে সার্বিক ভাবেই আওয়ামীলীগ সরকার এবং দেশের লাভ। এটা বোঝার মতো ক্ষমতা একজন শেখ হাসিনার আছে। একারণেই আমার বিশ্বাস, মহল্লার কূটনা বুড়িদের মতো অযোগ্য একদল ধান্দাবাজের কথায় তিনি কান দেবেন না।

এতোগুলো কথা লিখলাম একেবারেই রাষ্ট্র ও সরকারের স্বার্থে। এখানে আমার ন্যূনতম ব্যক্তিগত কোনো স্বার্থ কিংবা মতলব নেই। শেখ হাসিনাকে চিনি ১৯৮১ সাল থেকে। কিন্তু তিনি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর কখনোই ওনার কাছে যাইনি। ওনার অফিসের প্রেস বিভাগের লোকজনদের আমি চিনিনা। চেনার কোনো কারণও নেই। আমার ওখানে গিয়ে ধান্দাবাজি কিংবা তদবির বাণিজ্য করার মানসিকতা নেই। নাঈম ভাই প্রেস সচিবের দায়িত্ব নিলে আমি নিশ্চিত ওনার সাথে দেখা করতেও যাবোনা। তিনিও তখন অনেক কারণেই আমার মতো ক্ষুদ্র এক সাংবাদিকের সাথে যোগাযোগের প্রয়োজনও মনে করবেন না। তবু ভালো লাগবে, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস বিভাগে এবার একজন যোগ্য মানুষ আছেন। ব্যস, এটুকুই। 

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একাধিক পুরস্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক,কাউন্টারটেররিজম বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও প্রভাবশালী ইংরেজি পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক

� পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ �







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, গ্রীন ট্রেড পয়েন্ট, ৭ বীর উত্তম এ কে খন্দকার রোড, মহাখালী বা/এ, ঢাকা ১২১২।
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: [email protected]
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status