ই-পেপার সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২
সদস্য হোন |  আমাদের জানুন |  পডকাস্ট |  গুগলী |  ডিসকাউন্ট শপ
শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
জাতীয় দলের নতুন প্রধান নির্বাচক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু কে?
নতুন সময় প্রতিবেদক
প্রকাশ: Monday, 12 February, 2024, 11:57 PM

জাতীয় দলের নতুন প্রধান নির্বাচক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু কে?

জাতীয় দলের নতুন প্রধান নির্বাচক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু কে?

দীর্ঘ ৮ বছর পর নতুন প্রধান নির্বাচক পেলো বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। মিনহাজুল আবেদনি নান্নুর স্থলাভিষিক্ত হলেন গাজী আশরাফ হোসেন লিপু।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বোর্ড সভা শেষে বিসিবি সভাপতি ও ক্রীড়ামন্ত্রী নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘যে কয়টা নাম এসেছিল আমাদের কাছে, তাদের মধ্যে তাকে (লিপু) সেরা মনে হয়েছে। কাজেই সেটা নিয়ে খুব একটা তর্ক হয়নি। উনি রাজি আছেন জানার পর আমরা একবাক্যে স্বীকার করে নিলাম ওনাকে প্রধান নির্বাচক হিসেবে নিয়োগ দেব।’


এদিকে নান্নুর সঙ্গে আগের নির্বাচক প্যানেল থেকে বাদ দেয়া হয়েছে হাবিবুল বাশার সুমনকেও। তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন বয়সভিত্তিক দলের নির্বাচক হান্নান সরকার। তবে নতুন প্যানেলে ঠাঁই হয়েছে আব্দুর রাজ্জাকের।


১৯৬০ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণকারী লিপুর বয়স এখন ৬৪ বছর। চলুন তার দীর্ঘ ক্রিকেটীয় ক্যারিয়ার সম্পর্কে জানা যাক-

গাজী আশরাফ হোসেন লিপুর খেলোয়াড়ি জীবন

বাংলাদেশ সর্বপ্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ১৯৮৬ সালের ৩১ মার্চ এশিয়া কাপে, পাকিস্তানের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে অভিষেক হয় লিপুর। একই সঙ্গে দলকে নেতৃত্বও দেন তিনি। অর্থাৎ বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রথম ওয়ানডে অধিনায়ক ছিলেন গাজী আশরাফ হোসেন লিপু।


ম্যাচটি শিলো শ্রীলঙ্কার মুরাতুয়ায়। কিন্তু ইমরান খানের পরাক্রমশালী পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটি লিপু এবং বাংলাদেশের জন্য মোটেও সুখকর ছিল না।

৩ বল খেলে শূন্য রানে ওয়াসিম আকরামের বলে বোল্ড হয়েছিলেন তিনি। আর মাত্র ৯৪ রানে অলআউট হয়েছিল তার দল। ৭ উইকেটের সহজ জয় পেয়েছিলো পাকিস্তান। তবে ম্যাচে তার অর্জনের খাতায় ছিলো পাকিস্তানি লিজেন্ড জাভেদ মিয়াদকে উইকেটটি।

এরপর আর মাত্র ৬টি ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি। সবগুলোতেই অধিনায়কত্ব করেছেন। কিন্তু ব্যাটিং কিংবা বোলিং- কোনোটিতেই স্মরণীয় কিছু করতে পারেননি।

এরপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, ভারত এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একটি করে ম্যাচ খেলেন গাজী আশরাফ। ব্যাট হাতে এসব ম্যাচে তার স্কোর যথাক্রমে ১০ (২৪), ২ (৭), ১০ (২৯), ৮ (৩১), ১১ (৭০), ১৮ (৭৫)।

ক্যারিয়ারের শেষ ওয়ানডেতেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নিজের সর্বোচ্চ ইনিংসটি খেলেন তিনি। আর বল হাতে মিয়াদাদ ছাড়া তার অপর শিকারটি হলেন শ্রীলঙ্কার রয় ডায়াস।
 


বাংলাদেশের ক্রিকেটের ঊষালগ্নে লীপু সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। মার্চ, ১৯৮৫ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দলকে নেতৃত্ব দেন। এর ১৯৯০-এর গ্রীষ্মকালে আইসিসি ট্রফি প্রতিযোগিতা পর্যন্ত বাংলাদেশের দায়িত্বে ছিলেন।


তবে জাতীয় দলের নেতৃত্ব গ্রহণের আগে ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ সফল ছিলেন গাজী আশরাফ। ঢাকা লীগের আবাহনী ক্রীড়া চক্রের নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্রিকেট দলেরও অধিনায়কত্ব করেছেন।

১৯৮৫ সালে জানুয়ারিতে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৫ জাতীয় দলের হয়ে সফরকারী নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে খেলেন।

লীপুর অধিনায়কত্বের কালে বাংলাদেশের ক্রিকেট বেশ এগিয়ে যায়। জাতীয় দলকে তিনি উল্লেখযোগ্য সাফল্য এনে দিতে না পারলেও নব্বই দশকে মিনহাজুল আবেদীন নান্নু, আতহার আলী খান, আকরাম খান, গোলাম নওশের প্রিন্স, আমিনুল ইসলাম বুলবুলের মতো বেশ কয়েকজন উদীয়মান ক্রিকেটারের আত্মপ্রকাশ ঘটে।
 
ক্রিকেট বোর্ডে দায়িত্ব পালন

খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর নেয়ার পর লিপু দেশের ক্রিকেট উন্নয়নে বিসিবির শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। বিভিন্ন সময়ে তিনি বিসিবির পরিচালক, ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান এবং বিপিএল গভর্নিং বডির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন।

 
১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জয়ী বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার ছিলেন গাজী আশরাফ হোসেন লিপু।
 
এবার তিনি আরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পেলেন। গত কয়েক বছর ধরে খেলোয়াড় নির্বাচন নিয়ে অনেক বার সমালোচিত হয়েছে নান্নুর বোর্ড। তাই নতুন দায়িত্ব নিয়ে সমর্থকদের প্রত্যাশার চাপ থাকছেই লিপুর ওপর।

পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, ১৭/ডি আজাদ সেন্টার, ৫৫ পুরানা পল্টন, ঢাকা ১০০০।
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: info@notunshomoy.com
কপিরাইট © দৈনিক নতুন সময় সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft
DMCA.com Protection Status