বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর, 2০২1
সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী
Published : Tuesday, 5 January, 2021 at 12:10 PM, Update: 05.01.2021 1:11:25 PM
নতুন বছরে অনেক স্বপ্ন আর নতুনের হাতছানি

নতুন বছরে অনেক স্বপ্ন আর নতুনের হাতছানি

পুরনো  বছরটা গেলো মানেই কৃষ্ণপক্ষের কবল থেকে আমরা সবাই মুক্তি পেলাম। দুবাহু  প্রসারিত করে আগলে ধরেছি নতুন বছর ২০২১কে। গেলো বছরের শেষভাগেই বিশ্বের  বিভিন্ন দেশে করোনা অতিমারির ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হয়েছে। এরই মাঝে  বাংলাদেশে করোনার তাণ্ডব কমতে শুরু করলো। এমন সুখবর এরই মাঝে কিছু  পত্রপত্রিকায় দেখলাম।


ঠিক  কী কারণে বাংলাদেশে সংক্রমণ কমছে? শীতকালে সক্রিয় চারটি ভাইরাস এবং করোনার  অ্যান্টিবডি গ্রোর কারণে সংক্রমণ কমছে বলে মনে করেন কোভিড-১৯ সংক্রান্ত  জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির অন্যতম সদস্য, খ্যাতিমান ভাইরোলজিস্ট  অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম। তিনি বললেন, আমাদের এখানে অনেক আগ থেকে ৪টি  শীতকালের ভাইরাস রয়েছে। যেমন - ইনফ্লুয়েঞ্জা (এ), প্যারো ইনফ্লুয়েঞ্জা (৩),  রাইনোভাইরাস এবং নিউমোনিয়ার কারণে সর্দি, কাশি। নিয়ম হচ্ছে একটি ভাইরাস  থাকলে অন্য ভাইরাস ফুসফুসে ঢুকতে পারে না।

এছাড়া  করোনার কারণে মানুষের মধ্যে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে বলে তার ব্যক্তিগত  অভিমত প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, গরমে বাংলাদেশে যেভাবে করোনা বেড়েছিল।  শনাক্তের হার ২০ থেকে ২৪ শতাংশ পর্যন্ত ওঠানামা করেছিল। সেখানে এখন ৭-এর  ঘরে শনাক্তের হার।

আন্তর্জাতিক  খ্যাতি সম্পন্ন অণুজীব বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীল এ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমকে  বলেন, বাংলাদেশে যেহেতু হার্ড ইমিউনিটি বেড়ে গেছে, করোনা গ্রো করার জায়গা  পাচ্ছে না। তাই আগামী দিনগুলোতে সংক্রমণ কমবে, যদি না যুক্তরাজ্যের ভাইরাস  আমাদের দেশে ঢুকে। তবে নতুন করোনাভারাইসটি প্রবেশ করলেও বর্তমান হার্ড  ইমিউনিটি কাজ করবে। ১০০ ভাগ না হলেও ৯০ ভাগ তো কাজ করবে। ড. বিজন বলেন,  করোনা সংক্রমণ পশ্চিমে বেড়েছে। তবে আমাদের কমে গেছে। এর মূল কারণ, আমাদের  হার্ড ইমিউনিটি বেড়েছে। আরেকটা কারণ হতে পারে, শীতকালে মানুষ ঘর থেকে কম  বের হয়। এ ছাড়া শীতে মানুষ নাক ঢেকে রাখে, সেটা মাস্ক হোক কিংবা মাফলার  হোক।

মোদ্দা কথায়, অচিরেই  আমরা করোনামুক্ত হতে চলেছি। অবশ্যই আমরা সবাই প্রানভরে কৃতজ্ঞতা জানাবো গত  ক'মাস ধরে যেসব চিকিৎসা কর্মী নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা  আক্রান্তদের সেবা দিয়েছেন, তাঁদের প্রতি। কৃতজ্ঞতা জানাবো আমাদের  সশস্ত্রবাহিনী এবং পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের প্রতি।

বাংলাদেশ  ভীষণ সফলভাবেই করোনা অতিমারীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে যে  মানুষটির বলিষ্ঠ এবং সময়োপযোগী নেতৃত্বের কারণে, তিনি হচ্ছেন আমাদের  প্রাণপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা সবাই অবশ্যই ওনার প্রতিও  কৃতজ্ঞতা জানাবো।

গত  প্রায় নয় মাস আমরা সবাই করোনা দানবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছি। এই সময়টায়  দেশের অনেক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ব্যবসার চরম মন্দাভাব বয়ে গেছে। অনেকেই  আর্থিক কষ্টেরও মুখোমুখী হয়েছেন। স্রষ্টার প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা - তিনি  আমাদের এই করোনা দানবের কবল থেকে মুক্তি দিয়েছেন। এবার আমাদের সবাইকে  দ্বিগুণ গতিতে যারযার কর্মক্ষেত্রে মনোনিবেশ করতে হবে। নয় মাসের আর্থিক  ক্ষতি কাটিয়ে উঠে আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে - এগিয়ে যেতে হবে সমৃদ্ধির  পথে। সবাইকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশকে আরো  অনেক-অনেক বেশী সমৃদ্ধিশালী করতে।

করোনা  আমাদের কষ্ট দিয়েছে - যাতনা দিয়েছে, এটা যেমন সত্যি, ঠিক তেমনিভাবে এটাও  সত্যি - বাংলাদেশের অর্থনীতি ক্রমাগত দ্রুত গতিতে সামনের দিকে এগিয়ে  যাচ্ছে। এরই মাঝে আমাদের আর্থিক প্রবৃদ্ধির হার ভারতকে ছড়িয়ে গেছে। আগামী  ১-২ বছরের মধ্যেই আমাদের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি সিঙ্গাপুরকে ছড়িয়ে যাবে।  তারমানে হলো, আমরা বিশ্বের বুকে এক সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়াতে  চলেছি, খুব শিগগিরি। এরফলে, আমাদের দেশে বেকারত্বের হার অনেকাংশেই কমে  যাবে। নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি শিক্ষা, বাসস্থান,  চিকিৎসাসহ বিভিন্ন সেক্টরেও উন্নতি সাধিত হবে।

স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরের মাথায় আমাদের প্রাণপ্রিয় দেশ সুখের ঠিকানায় পরিণত হতে চলেছে।

আসুন,  সবাই মিলে এই মাহেন্দ্রক্ষণে প্রতিজ্ঞা করি, আমরা সবাই নিষ্ঠার সাথে  নিজেদের দায়িত্ব পালন করবো। একে-অন্যকে এগিয়ে যেতে উৎসাহিত করবো।  হাতে-হাত রেখে সবাই শান্তির এক অসাধারণ পরিবেশ রচনা করবো।

এ সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় কাগজ 'নতুন সময়'-এর পাঠক ও পৃষ্ঠপোষকদের জন্যে নতুন বছরের অনেক শুভকামনা। এগিয়ে যাক নতুন সময়।

 লেখক: সালাহ্  উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাংবাদিক, গবেষক,  জঙ্গিবাদ বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক


পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত


DMCA.com Protection Status
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, ২৫/১ পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: info@notunshomoy.com
Developed & Maintainance by i2soft