নতুন সময় প্রতিবেদক
Published : Friday, 8 June, 2018 at 12:58 AM, Count : 118
বাজেটে প্রত্যাশার কিছুই পায়নি আবাসন খাত

বাজেটে প্রত্যাশার কিছুই পায়নি আবাসন খাত

সদ্য ঘোষিত (২০১৮-১৯) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে  আবাসন শিল্পের জন্য কিছুই রাখা হয়নি। উল্টো যেসব প্রস্তাব করা হয়েছে, এতে নিম্ন ও মধ্য বিত্তরা আবাসন বিমুখ হবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে আবাসন খাত।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) জাতীয় সংসদের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের প্রস্তাবিত বাজেটের পর আবাসন খাতের সংশ্লিষ্টরা তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন।

ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাবের প্রথম সহ-সভাপতি লিয়াকত আলী ভূইয়া  বলেন, এই বাজেটে আমরা প্রত্যাশার কিছুই পাইনি। ছোট ফ্ল্যাটের দাম বাড়ানোর যে প্রস্তাব করা হয়েছে, তাতে এ খাতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। কারণ নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা ফ্ল্যাট কেনার প্রতি বিমুখ হবে। আর মাঝারি ফ্ল্যাটে যেসব সুযোগ সুবিধা দেয়া হয়েছে তার সুফল বেশি পাওয়া যাবে না। এ বিষয়ে দু-একদিনের মধ্যে সংবাদ সম্মেলনে করে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানান তিনি।

প্রস্তাবিত বাজেট অনুসারে,  আগামী অর্থবছর থেকে ছোট ফ্ল্যাট (১ থেকে ১১০০ বর্গফুট) কেনায় খরচ বাড়তে পারে। তবে মাঝারি আকারের (১১০১-১৬০০ বর্গফুট) ফ্ল্যাট কেনার খরচ কমতে পারে। কেননা বর্তমানে ১-১১০০ বর্গফুট পর্যন্ত ফ্ল্যাট নিবন্ধনে ১ দশমিক ৫ শতাংশ ভ্যাট রয়েছে। আর ১১০১-১৬০০ বর্গফুট পর্যন্ত ফ্ল্যাট নিবন্ধনে ভ্যাটের হার রয়েছে ২ দশমিক ৫ শতাংশ।

আগামী অর্থবছরে এই দুই ধরনের ফ্ল্যাটের নিবন্ধনে ২ শতাংশ হারে ভ্যাট নির্ধারণের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। তবে বড় ফ্ল্যাট (১৬০১ থেকে বেশি) নিবন্ধনের ভ্যাট হার ৪ দশমিক ৫ শতাংশ অপরিবর্তিত থাকছে। এদিকে যারা পুরনো ফ্ল্যাট কিনবেন তাদেরও খরচ বাড়তে পারে। কারণ নতুন অর্থবছরে পুরনো ফ্ল্যাট পুনঃনিবন্ধনে ২ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ করা হচ্ছে।

শুধু তাই নয়, ফ্ল্যাট কেনার পর ঘর সাজানোর আসবাবপত্র কিনতে গেলে আগামী অর্থবছর বাড়তি চাপে পড়তে হতে পারে ক্রেতাদের। ২০১৮-১৯ অর্থবছর থেকে আসবাবপত্র উৎপাদন ও বিপণন পর্যায়ে ১ শতাংশ করে ভ্যাট বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বর্তমানে আসবাবপত্র উৎপাদন পর্যায়ে ৬ শতাংশ হারে ভ্যাট দিতে হয়।

আগামী অর্থবছর থেকে তা ৭ শতাংশ হারে প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। আর বিপণন পর্যায়ে ৪ শতাংশ ভ্যাট পরিবর্তন করে ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয় বাজেটে। এটিও ফ্ল্যাট বা আবাসন ব্যবসায় কিছুটা প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, বাড়ি ৭/১, রোড ১, পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: newsnotunsomoy@gmail.com
Developed & Maintainance by i2soft