নতুন সময় ডেস্ক
Published : Saturday, 5 May, 2018 at 10:30 AM, Count : 258
মৃত্যু থেকে ফিরে আসা দুজন মানুষ জানালেন স্বর্গ-নরক অভিজ্ঞতা

মৃত্যু থেকে ফিরে আসা দুজন মানুষ জানালেন স্বর্গ-নরক অভিজ্ঞতা

স্বর্গ ও নরকের ধারণা কি সত্য? সহজ যুক্তিতে সেটা জানা সম্ভব নয়। কারণ, এই দুটো জায়গায় যাওয়া যায় মৃত্যুর পরেই। এবং সেই কারণেই এই দুই স্থান থেকে ফিরে এসে কেউ জানাতে পারেননি, জায়গা দু’টির অস্তিত্ব সম্পর্কে। ফলে এই কথাই আমরা সাধারণত বলে থাকি, স্বর্গ বা নরক আমাদের মনের মধ্যেই। অথবা এই পৃথিবীতেই আমাদের কৃতকর্ম আমাদের স্বর্গবাস অথবা নরকযন্ত্রণা ভোগের অভিজ্ঞতা দান করে। কিন্তু সত্যিই কি তাই? স্বর্গ বা নরক থেকে কি কেউই ‘ফিরে’ আসেননি?

নিয়ার ডেথ এক্সপিরিয়েন্স বা মৃত্যুর কাছাকাছি অভিজ্ঞতাপ্রাপ্তরা কিন্তু অনেকেই ভিন্ন কথা বলেন। এখানে একজনের কথা বলা যাক। ১৯৮৫ সালের ১৪ এপ্রিল কেরলের ধর্মযাজক ফাদার টম মানিয়াঙ্গাত উত্তর কেরলে এক ধর্মীয় অনুষ্ঠানেই যাচ্ছিলেন। পথে তাঁর গাড়ির সঙ্গে একটি জিপের ধাক্কা লাগে। এবং এই দুর্ঘটনায় ফাদার টম মারা যান। অর্থাৎ তাঁর দেহ থেকে জীবনের সমস্ত লক্ষণই লোপ পায়।

কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে তিনি বেঁচে ওঠেন। ফাদার টম তার পরে জানান, তিনি স্বচক্ষে দেখতে পান, তাঁর শরীর ঘিরে তাঁর আত্মীয়-স্বজনরা হাসপাতালে বিলাপ করছেন। এমন সময়েই তিনি তাঁর গার্ডিয়ান এঞ্জেলের দেখা পান। তিনি তাঁকে স্বর্গে নিয়ে যেতে চান। এঞ্জেল জানান, ঈশ্বর তাঁর সঙ্গে কথা বলবেন। এর পরেই ফাদার টম নরকের একটা ঝলক দেখতে পান। তাঁর দেখা নরক, খ্রিস্টীয় বিশ্বাসের একেবারেই অনুরূপ। তিনি নরকাগ্নি, শয়তান ও তার অনুচরবর্গ, শাস্তিপ্রাপ্ত আত্মা ইত্যাদি তিনি দেখতে পান। এঞ্জেল তাঁকে জানান, শাস্তিপ্রাপ্তরা যদি অনুতপ্ত হয়, তা হলে তারা সেখান থেকে মুক্তি পায়। এর পরেই ফাদারের সামনে স্বর্গের এক ঝলক উন্মুক্ত হয়। এমন শান্তি এমন আনন্দ তিনি সারা জীবনেও পাননি। সঙ্গীতময়, অপার সৌন্দর্যে পূর্ণ সেই জগৎ। সেখানেই তিনি ঈশ্বরপুত্রের দেখা পান। প্রভু যিশুকে আমরা ছবিতে যেমন দেখি, তার চাইতে অনেক বেশি সুন্দর তিনি। ফাদার অনুভব করেন, স্বর্গই আমাদের প্রকৃত আবাস, এখানেই আমাদের ফিরে আসতে হয়।

ফাদার টমের এই অভিজ্ঞতা নিয়ে যদি সন্দেহের অবকাশ থাকে, তা হলে অন্য আর এক জনের অভিজ্ঞতার কথা জানা অবশ্য প্রয়োজন। তিনি কিন্তু ধর্মীয় পরিমণ্ডলের মানুষ নন। তিনি একজন স্নায়ু-চিকিৎসক। মার্কিন এই স্নায়ু-চিকিৎসকের নাম এবেন আলেকজান্ডার। অসুস্থতার কারণে তিনি কোমায় চলে যান। আর সেই সময়েই ঘটে তাঁর ‘স্বর্গ-দর্শন’। তাঁর স্ত্রীর সাক্ষ্য থেকে জানা যায়, তাঁকে সেই অবস্থাতে জীবিত বলে মনেই হচ্ছিল না। মনে হচ্ছিল, তাঁর দেহটাই পড়ে রয়েছে, তিনি অন্য কোথাও রয়েছেন।

এবেন পরে জানান, তিনি এমন এক জায়গায় পৌঁছন, যেখানে আশ্চর্য আলো আর সঙ্গীত। সেখানে এক ডানাওয়ালা মহিলার সঙ্গে তাঁর দেখা হয়। তিনি তাঁকে জানান— তিনি আশীর্বাদপ্রাপ্ত। তাঁর কোনও ক্ষতি হবে না। পরে এবেন ‘প্রুফ অফ হেভেন’ নামে একটি বই লেখেন। সেখানে অবশ্য তিনি জানান, এটি হ্যালুসনেশন হতে পারে। অসুস্থতার কারণে চিত্তবিভ্রম হতে পারে। কিন্তু তাঁর মস্তিষ্ক স্ক্যান করে তেমন কোনও সম্ভাবনা দেখা যায়নি।

প্যারানর্মাল বিশেষজ্ঞরা জানান, ফাদার টম ও এবেন— দু’জনেই নিয়ার ডেথ এক্সপিরিয়েন্স প্রাপ্ত হয়েছিলেন। এমন অবস্থায় মৃত্যুর পরের অভিজ্ঞতা ক্ষণিকের জন্য হলেও পাওয়া যায়। এখানেই স্বর্গ বা নরকের দেখা মেলে। এই দর্শন অবশ্যই দ্রষ্টার সাংস্কৃতিক অবস্থানের সাপেক্ষ। অর্থাৎ আপনি শৈশব থেকে স্বর্গ বা নরক সম্পর্কে যে ধারণা প্রাপ্ত হয়েছেন, তা-ই আপনার সামনে দৃশ্যমান হবে। তার বাইরে কিছুই আপনি দেখবেন না। তবে বিষয়টি বিতর্কিত। প্যারাসাইকোলজিস্টরা এই নিয়ে গবেষণায় রত আছেন দীর্ঘকাল ধরেই।       


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, বাড়ি ৭/১, রোড ১, পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: newsnotunsomoy@gmail.com
Developed & Maintainance by i2soft