নতুন সময় ডেস্ক
Published : Tuesday, 27 March, 2018 at 4:47 PM, Count : 120
শিগগিরই নিয়োগ হবে ৩০ হাজার জনবল

শিগগিরই নিয়োগ হবে ৩০ হাজার জনবল

স্বাস্থ্য খাতে নন-মেডিক্যাল কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার অবসান হয়েছে। নতুন নিয়োগ বিধিমালা তৈরি হওয়ায় এই জটিলতা দূর হয়। গত ২৪ মার্চ স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে। প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ায় প্রায় ৩০ হাজার শূন্যপদে জনবল নিয়োগ দেওয়া যাবে।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে নিয়োগদান পদ্ধতি সম্পর্কে বলা হয়েছে, নতুন এই নিয়োগ বিধিমালা বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগীয় নন-মেডিক্যাল কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ২০১৮ নামে অভিহিত হবে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ২৯ (৩)-এর উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, সংরক্ষণ সংক্রান্ত নির্দেশাবলি সাপেক্ষ কোনো শূন্যপদে সরাসরি; পদোন্নতি ও প্রেষণে বদলি এই তিন পদ্ধতিতে নিয়োগ দান করা যাবে। বিধিমালা ৪(১) অনুযায়ী, বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের সুপারিশ ব্যতীত কমিশনের আওতাভুক্ত কোনো পদে সরাসরি নিয়োগ দেওয়া যাবে না।

প্রজ্ঞাপনের ৭ (২) বিশেষ বিধানে বলা হয়েছেÑ পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ডোম, মালি, অফিস সহায়ক, মালি, বাবুর্চি, ধুপি, আয়া, ওয়ার্ডবয়, কার্পেন্টার, প্যাকার, প্রধান নিরাপত্তাপ্রহরী, ফায়ারম্যান, ডিসপেন্সারি বয়, লাইব্রেরি অ্যাটেনডেন্টসহ চতুর্থ শ্রেণির পদের কোনো কর্মচারীর পদ পদোন্নতি, অবসর, পদত্যাগ, মৃত্যু বা অন্য কোনো কারণে শূন্য হলে প্রথমত উহার বিপরীতে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে সেবাগ্রহণ করতে হবে। দ্বিতীয়ত ওই পদ হতে কোনো পদে পদোন্নতির বিধান কার্যকর থাকবে না।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়োগবিধি ‘দ্য বাংলাদেশ হেলথ সার্ভিস (নন-মেডিক্যাল অফিসার্স অ্যান্ড এমপ্লয়িজ রিক্রুটমেন্ট) রুলস-১৯৮৫ সালে এরশাদ সরকারের আমলে তৈরি করা হয়েছিল। সংসদে এরশাদ সরকারের সময়ের কার্যক্রম অবৈধ ঘোষণা করায় অন্য বিধিগুলোর সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়োগবিধিও অবৈধ হয়ে যায়। ওই বিধি অবৈধ হওয়ার কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতালগুলোতে নতুন জনবল নিয়োগ বন্ধ হয়ে যায়। নতুন নিয়োগবিধি তৈরি না হওয়ায় সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, জেলা-উপজেলা হাসপাতালগুলোতে টেকনিশিয়ান, টেকনোলজিস্ট, ফার্মাসিস্ট, অফিস সহায়ক, ওয়ার্ডবয়সহ স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের ২৯ হাজার ৭৯২ পদ খালি হয়। নতুন এই প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে শূন্যপদে জনবল নিয়োগ প্রদানের আর কোনো বাধা থাকবে না। শিগগিরই এসব পদে জনবল নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব ডা. ইহতেশামুলক হক চৌধুরী দুলাল বলেন, স্বাস্থ্য খাতে নন-মেডিক্যাল কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা তৈরি হওয়ায় নতুন কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করা হবে। দীর্ঘ সময় পদগুলোতে নিয়োগ বন্ধ থাকায় স্বাস্থ্যসেবা খাতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছে। টেকনিশিয়ান ও টেকনোলজিস্টের পদগুলো শূন্য থাকায় অনেক যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে গেছে। এখন দ্রুত সময়ের মধ্যে জনবল নিয়োগ দেওয়া গেলে সেবাদানের ক্ষেত্রে সমস্যা দূর হবে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের ২৯ হাজার ৭৯২ পদ শূন্য ছিল। মৃত্যুজনিত, অবসর, পদত্যাগ, বদলি, স্থানান্তর, বরখাস্তসহ বিভিন্ন কারণে এসব পদ শূন্য হয়েছে। আইনি জটিলতার কারণে এসব পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া যায়নি। বিশাল জনবল সংকটের কারণে স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয় উল্লেখ করে গত বছরের ২৬ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে চিঠি দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের প্রশাসন-৪ (মনিটরিং ও সমন্বয়) অধিশাখার উপসচিব মো. লুৎফর রহমান স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুমোদিত পদের সংখ্য ১ লাখ ২৫ হাজার ৩৫০ জন। কিন্তু সেখানে বর্তমানে কর্মরত ১ লাখ ৫ হাজার ৫৫৮ জন। স্বাস্থ্য বিভাগের আওতাধীন সব প্রতিষ্ঠানেই অনুমোদিত জনবল নেই। সব মিলিয়ে ২৯ হাজার ৭৯২ পদ শূন্য রয়েছে। চিঠিতে উল্লেখ করা শূন্যপদগুলো হচ্ছেÑ স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের ১৭২টি; স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ২৫ হাজার ৩৭৫টি; নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের ৩ হাজার ৯১২টি; ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ৮৭টি; স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ১৮৬টি; ন্যাশনাল ইলেক্ট্রা-মেডিক্যাল ইকুইপমেন্ট মেইনটেন্যান্স ওয়ার্কশপ অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারের ২৯টি; যানবাহন ও যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ সংস্থার (টেমো) ২৫টি; স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইউনিটের ৬টি। শূন্যপদগুলোর মধ্যে জেলা কর্মকর্তার ১৫টি, প্রথম শ্রেণির ৪ হাজার ৪৩৪, দ্বিতীয় শ্রেণির ৩ হাজার ৯৮৫, তৃতীয় শ্রেণির ১৩ হাজার ৩৮২টি এবং চতুর্থ শ্রেণির ৭ হাজার ৯৭৬টিসহ ২৯ হাজার ৯৭২টি পদ রয়েছে।

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয় আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মতামতের আলোকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়োগবিধি ‘দ্য বাংলাদেশ হেলথ সার্ভিস (নন-মেডিক্যাল অফিসার্স অ্যান্ড এমপ্লয়িজ রিক্রুটমেন্ট) রুলস-১৯৮৫’ অকার্যকর হওয়ায় বর্তমানে ওই নিয়োগবিধির আওতাভুক্ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতালে রাজস্ব খাতভুক্ত পদে সরাসরি জনবল নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, বাড়ি ৭/১, রোড ১, পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: newsnotunsomoy@gmail.com
Developed & Maintainance by i2soft