নতুন সময় প্রতিবেদক
Published : Monday, 12 February, 2018 at 1:26 PM, Count : 318

পুলিশে ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ : কোন জেলায় কবে পরীক্ষা

পুলিশে ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ : কোন জেলায় কবে পরীক্ষা

জননিরাপত্তা বিধান ও সেবার মহান ব্রত নিয়ে নিজেকে গড়ে তুলতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে লোক নেওয়া হবে। ৮ হাজার ৫শ' পুরুষ ও দেড় হাজার নারীকে এই নিয়োগ দেওয়া হবে। এ বিষয়ে গত মার্চে সার্কুলার জারি করেছে বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স। শারীরিক, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা হবে প্রত্যেকের নিজ নিজ জেলায়। আগ্রহী প্রার্থীদের শারীরিক মাপ ও শারীরিক পরীক্ষাসহ নির্দিষ্ট তারিখে সকাল ৯টার আগেই নিজ জেলার পুলিশ লাইন্সে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপস্থিত থাকার জন্য আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স।

আবেদনের যোগ্যতা:

পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের রিক্রুটমেন্ট অ্যান্ড ক্যারিয়ার প্ল্যানিং বিভাগের অ্যাডিশনাল ডিআইজি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, প্রার্থীকে কমপক্ষে জিপিএ ২.৫০ পেয়ে এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। ১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে বয়সসীমা সাধারণ, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের সন্তান বা অন্যান্য কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ১৮-২০ বছর, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা/মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের ক্ষেত্রে ১৮-৩২ বছর। প্রার্থীকে বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক ও অবিবাহিত হতে হবে। সাধারণ, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের সন্তান বা অন্যান্য কোটার পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি, বুক স্বাভাবিক অবস্থায় ৩১ ইঞ্চি এবং সম্প্রসারিত অবস্থায় ৩৩ ইঞ্চি হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা/মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের ক্ষেত্রে উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি এবং সম্প্রসারিত অবস্থায় ৩১ ইঞ্চি হতে হবে। উপজাতীয় প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, বুক স্বাভাবিক অবস্থায় ৩১ ইঞ্চি এবং সম্প্রসারিত অবস্থায় হতে হবে ৩৩ ইঞ্চি।

সব কোটার নারী প্রার্থীদের উচ্চতা থাকতে হবে কমপক্ষে ৫ ফুট ২ ইঞ্চি। সবার ক্ষেত্রে বডি মাস ইনডেক্স অনুযায়ী উচ্চতা ও ওজনের সামঞ্জস্য থাকতে হবে।

শারীরিক পরীক্ষা:

শারীরিক মাপ ও শারীরিক পরীক্ষা নেওয়া হবে প্রার্থীর নিজ জেলার পুলিশ লাইনস ময়দানে। নির্ধারিত তারিখে উপস্থিত হতে হবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ। চাকরিরত প্রার্থীদের সঙ্গে রাখতে হবে কর্তৃপক্ষের অনুমতিপত্র। শারীরিক মাপ পরীক্ষায় বয়স, উচ্চতা, বুকের প্রস্থ ও ওজন ঠিক আছে কি না যাচাই করা হবে। এরপর অংশ নিতে হবে দৌড়ে। সাধারণত নির্ধারিত দূরত্বে দৌড়ানোর জন্য বলা হয়ে থাকে। ফিটনেস যাচাইয়ের জন্য হতে পারে লং জাম্প পরীক্ষাও। বয়স ও উচ্চতার তুলনায় ওজন বেশি হলে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। ওজন কম হলে পর্যাপ্ত খাওয়া ও নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমে সামঞ্জস্যপূর্ণ করতে হবে। অনেকে কয়েক মিটার দৌড়েই হাঁপিয়ে যান বা মাঝপথে পড়ে যান। খোলা মাঠে লং জাম্প ও দৌড়ের প্র্যাকটিস করতে হবে। শারীরিক মাপের সময় হাফহাতা বা টি-শার্ট পরে যাওয়াটাই ভালো। দৌড়ের উপযোগী হাফপ্যান্ট বা ঢিলেঢালা ট্রাউজার পরতে হবে, যাতে ব্যায়ামের সময় অসুবিধা না হয়। পুরুষ ও নারীরা নিজেদের উপযোগী একাধিক পোশাক সঙ্গে রাখতে পারেন, যেন ব্যায়ামের সময় বদলে নেওয়া যায়।

পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে জেলার পুলিশ সুপার পরবর্তী পরীক্ষার জন্য প্রবেশপত্র ইস্যু করবেন। একই সঙ্গে তিনি লিখিত পরীক্ষার কেন্দ্র নির্ধারণ করে প্রার্থীদের জানিয়ে দেবেন। লিখিত, মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষার সময় সঙ্গে আনতে হবে প্রবেশপত্র।

লিখিত পরীক্ষা:

শারীরিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে নির্দিষ্ট দিনে বসতে হবে লিখিত পরীক্ষায়। পরীক্ষার পূর্ণমান ৪০। সময় দেড় ঘণ্টা। সাধারণত বাংলা ১৫, ইংরেজি ১৫ ও সাধারণ গণিত থেকে ১০ নম্বরের প্রশ্ন থাকে। অষ্টম, নবম ও দশম শ্রেণির বোর্ড নির্ধারিত পাঠ্য বই থেকেই প্রশ্ন করা হয়। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পেতে হবে কমপক্ষে ৪৫ শতাংশ নম্বর।

বাংলা অংশে রচনা, অনুচ্ছেদ লিখন, ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ, ভাব সম্প্রসারণ, এককথায় প্রকাশ, সমার্থক শব্দ, সন্ধি বিচ্ছেদ, বাগধারা থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। এসএসসি পর্যায়ের বাংলা প্রথম পত্র এবং বোর্ডের ব্যাকরণ বই পড়তে হবে। বাংলাদেশ প্রসঙ্গ, পুলিশবাহিনী ও সাম্প্রতিক বিষয়াবলি থেকে কিছু সাধারণ জ্ঞানমূলক প্রশ্নও করা হতে পারে। নিয়মিত পত্রিকা, কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স বিষয়ক মাসিক সাময়িকী পড়লে কাজে দেবে।

ইংরেজিতে প্রশ্ন আসে Essay, Paragraph, Fill in the Gaps, Letter, Application, Sentence Making, Translation থেকে। অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির উপযোগী Essay, Paragraph, Letter, Application-এর প্রস্তুতি নিলেই চলবে। Fill in the Gaps অংশে ভালো করার জন্য Grammar-এর বিভিন্ন Rules, Tense, Noun, Pronoun, Adjective, Verb-এর বিভিন্ন Form ভালোভাবে আয়ত্তে রাখতে হবে। Sentence Making-এর ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে, বাক্য যেন অর্থবোধক হয়। পাটিগণিত ও বীজগণিত থেকে প্রশ্ন করা হয় সাধারণ গণিত অংশে। সাধারণত শতকরা, লাভ-ক্ষতি, সুদকষা, ল.সা.গু. ও গ.সা.গু. থেকে প্রশ্ন থাকে। ভালো করতে চাইলে অষ্টম থেকে দশম শ্রেণির সাধারণ গণিত বইয়ের অঙ্ক বারবার চর্চা করতে হবে।

মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষা:

লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের নির্ধারিত তারিখে মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। এতে থাকবে ২০ নম্বর। ব্যক্তিগত পরিচিতিমূলক প্রশ্নের পাশাপাশি প্রার্থীর মানসিক দক্ষতা, মূল্যবোধ বিচারের জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন করা হয় এ পরীক্ষায়। মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষায় উপস্থাপনা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। পোশাক মার্জিত হতে হবে। ভাইভা বোর্ডে নিজেকে উপস্থাপন করতে হবে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে। যে বিষয়ে জানতে চাওয়া হবে, তার যথাযথ উত্তর দিতে হবে। অপ্রাসঙ্গিক কোনো কথা বলা যাবে না। এতেও পেতে হবে কমপক্ষে ৪৫ শতাংশ নম্বর।

মেধানুসারে প্রার্থী নির্বাচন:

প্রতি জেলায় শূন্য পদের বিপরীতে পরীক্ষায় পাওয়া নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম অনুযায়ী প্রাথমিকভাবে প্রার্থী নির্বাচন করা হবে। নির্বাচিতরা পুলিশ ভেরিফিকেশন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষায় যোগ্য বিবেচিত হলে প্রশিক্ষণের জন্য প্রাথমিক মনোনয়ন পাবেন। কোনো ভুল তথ্য দেওয়া যাবে না। ভেরিফিকেশনে তথ্য ভুল প্রমাণিত হলে মনোনয়ন বাতিল হবে। প্রাথমিকভাবে নির্বাচিতরা প্রশিক্ষণকেন্দ্রে যোগ দেওয়ার পর শারীরিক যোগ্যতা ও অন্যান্য তথ্য যাচাই করবে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত পুনর্বাছাই কমিটি। যোগ্যদের ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল হিসেবে ছয় মাসের প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হবে নির্ধারিত প্রশিক্ষণকেন্দ্রে।

আসুন জেনে নেই কোন জেলায় কবে পরীক্ষা:

আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি শারীরিক ও ২৪ ফেব্রুয়ারি লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: মাদারীপুর, রাজবাড়ী, চাঁদপুর, সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, নাটোর, নীলফামারী, পিরোজপুর এবং বরগুনা মোট ১০টি জেলা।

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি শারীরিক ও ২৬ ফেব্রুয়ারি লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, শরীয়তপুর, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, ফেনী, মাগুরা, মেহেরপুর, জয়পুরহাট এবং ঝালকাঠি মোট ১১টি জেলা।

আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি শারীরিক ও ২৭ ফেব্রুয়ারি লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: গাজীপুর, নরসিংদী, কক্সবাজার, লক্ষ্মীপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, ঝিনাইদহ, ভোলা এবং মৌলভীবাজার মোট ১১ টি জেলা।

আগামী ০৩ মার্চ শারীরিক ও ০৫ মার্চ লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: মানিকগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, খুলনা, বাগেরহাট, নড়াইল, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, পটুয়াখালী, সিলেট এবং সুনামগঞ্জ মোট ১০ টি জেলা।

আগামী ০৪ মার্চ শারীরিক ও ০৬ মার্চ লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: ঢাকা, গোপালগঞ্জ, টাংগাইল, ময়মনসিংহ, জামালপুর, চট্রগ্রাম, কুমিল্লা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, বরিশাল এবং হবিগঞ্জ মোট ১১টি জেলা।

আগামী ০৬ মার্চ শারীরিক ও ০৮ মার্চ লিখিত পরীক্ষা যে যে জেলায়: ফরিদপুর, নেত্রকোনা, শেরপুর, বি-বাড়ীয়া, নোয়াখালী, বগুড়া, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, নওগাঁ, রংপুর এবং দিনাজপুর মোট ১১টি জেলা।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: নাজমুল হক শ্যামল
দৈনিক নতুন সময়, বাড়ি ৭/১, রোড ১, পল্লবী, মিরপুর ১২, ঢাকা- ১২১৬
ফোন: ৫৮৩১২৮৮৮, ০১৯৯৪ ৬৬৬০৮৯, ইমেইল: newsnotunsomoy@gmail.com
Developed & Maintainance by i2soft